crimefocus71.com

নীলফামারীর ডোমার উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নামে আদালতে মামলা

(Last Updated On: April 26, 2017)

নীলফামারী প্রতিনিধিঃ : নীলফামারীর ডোমারে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নামে আদালতে মামলা দায়ের করেছে এক ভুক্তভোগী। মন্ত্রনালয়ের নির্দেশ, আদালতের অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার আদেশ কার্যকর না করা, অবৈধ দখলকারদের সাথে যোগসাজশে ব্যাক্তি মালিকানাধীন সম্পত্তি দখল ও এ নিয়ে একাধিকবার তার কাছে অভিযোগ দায়ের করা হলেও কোন ব্যাবস্থা না নেয়ায় আদালতের দারস্থ হয়েছে ভুক্তভোগী। নীলফামারী জজ আদালতে দায়ের করা মামলা নং- অন্য ২৮/১১। আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে ৫ কার্য দিবসের মধ্য কারণ দর্শানোর নোটিশ জারি করেছেন। নীলফামারী জেলা জজ আদালতে দায়ের করা মামলার বিবরনে জানা যায়, জেলার ডোমার উপজেলার পাঙ্গা মটুকপুর ইউনিয়নের মেলাপাঙ্গা গ্রামের মুসার মোড় নামক স্থানে ডোমার উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সহযোগীতায় চলছে পাগলীমা’র হাট নামের একটি অবৈধ মৌসুমী হাট। হাটটি সরকারী তালিকাভুক্ত না হওয়ায় এ হাটের উপার্জিত অর্থ সরকারী কোষগারে জমা না করে তারা নিজেদের মধ্যে ভাগবাটোয়ারা করে নেয় বলে অভিযোগে প্রকাশ। এদিকে অন্যের জমি অবৈধভাবে দখল করে সেখানে  অবৈধ হাট বাজার স্থাপন করায় ডোমার ও ডিমলা উপজেলার ২৬টি বৈধ হাটবাজারের ইজারাদারগন ওই হাট বন্ধে ডোমার উপজেলা প্রশাসনকে বারবার লিখিত অভিযোগ করলেও সে হাট বন্ধ করা বার কোন ব্যাবস্থা নেয় নি ওই কর্মকর্তা। ব্যাক্তি মালিকানাধীন জমিতে জোর করে ওই হাটটি স্থাপন করায় জমির মালিক অবশেষে আদালতের শরনাপন্ন হলে আদালত হাট পরিচালনায় অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা জারি করে। এ ছাড়া স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রনালয়, স্থানীয় সরকার বিভাগের প্রশাসন-২ শাখা’র সিনিয়র সহকারী সচিব মুহাম্মদ ইকবাল হুসাইন ২৮ জুন ২০১৬ তারিখে স্বাক্ষরিত ৪৬.০৪১.০৩০.০১.০০.০০২.২০১৬-২৩০ নং স্বারকে একটি আদেশে ওই অবৈধ হাটটি বন্ধের জন্য স্থানীয় প্রশাসনকে নির্দেশ দেয়। ওই নির্দেশ প্রাপ্তির পর নীলফামারীর স্থানীয় সরকার শাখা হতে পাগলীমার হাট বন্ধে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহনে ২০১৬ সালের ২ আগস্ট ০৫.৪৭.৭৩০০.০১১.০৫০১৫.১৬-২৯৬ নং স্মারকে ডোমার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাবিহা সুলতানাকে নির্দেশ প্রদান করা হয়। এই নির্দেশের আট মাস অতিবাহিত হওয়ার পর ওই হাট অদ্যাবদি উচ্ছেদ বা বন্ধ করা হয়নি। সে নির্দেশ দীর্ঘদিন ধরে উপেক্ষিত রয়েছে এবং মন্ত্রনালয় ও আদালতের নির্দেশকে বৃন্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে ডোমার উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সহায়তায় চলছে সেই অবৈধ হাট। জমির মালিক তৌহিদুল ইসলাম সালাম এ অবস্থায় আদালতের আশ্রয় নিয়ে দুটি মামলা মামলা দায়ের করে। এ মামলা দায়েরের পর আদালত ওই জমির উপর হাট স্থাপনের উপর অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা জারী করে। আদালতের নিষেধাজ্ঞা থাকার পরও জোরপূর্বক এ হাট বসিয়ে টোল আদায় করে কথিত হাট কমিটির লোকজন ভোগ করছে। যার কোন অংশ সরকারী কোষাগারে জমা হচ্ছে না। আদালতের নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি বিবেচনা করে জমির মালিক হাট বন্ধের জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট অভিযোগ দায়ের করে। এরপরেও উপজেলা প্রশাসন হাটটি বন্ধ না করে উল্টো আদালত ও মন্ত্রনালয়ের নির্দেশকে উপেক্ষা করে উপজেলা ভুমি অফিসের সার্ভেয়ার কে দিয়ে একাধিকবার ওই হাটের ব্যাক্তি মালিকানাধীন জমি মাপজোখ করে ফায়দা হাসিল করছেন। অবশেষে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নামে আদালতে মামলা দায়ের করলেন জমির মালিক। মামলার অপরাপর বিবাদীরা হলেন, সহকারী কমিশনার (ভুমি) ডোমার, সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান সহ জমি দখলকারীগন। এ ব্যাপারে ডোমার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাবিহা সুলতানা সাংবাদিকদের জানান, এমন অনেক পত্র আসে। খুঁজে দেখতে হবে পত্র এসেছে কিনা।

43 total views, 1 views today

About crimef71

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

এক নজরে দেখে নিন ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ুয়া ছাত্রছাত্রীদের পরীক্ষার রুটিন-২০১৭

(Last Updated On: April 28, 2017) ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ুয়া ছাত্রছাত্রীদের পরীক্ষার রুটিন পেতে নিচের লিংকে ক্লিক করুন। https://goo.gl/DxDUvu 9,584 total views, ...

Translate »